ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২০১৩ সাল থেকে ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করে আসছেন জাতীয় দলের বাঁহাতি অলরাউন্ডার সাকিব। গত বছর শিশু অধিকার দূত হন তরুণ অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। এবার নতুন করে মুশফিকুর রহিমকে শুভেচ্ছাদূত বানালো জাতিসংঘের শিশু সংস্থাটি।
শিশুদের সুন্দর ও নিরাপদ জীবন গড়ে তোলার কাজের অংশ হতে পেরে উচ্ছ্বসিত মুশফিকুর রহিম। জাতীয় দলে নিজের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেছেন, ‘বছরের পর বছর আপনারা আমাকে বিভিন্ন ভূমিকা পালন করতে দেখেছেন। অনেক সফল জুটির অংশ হতে দেখেছেন। আমি অধিনায়ক হিসেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে নেতৃত্ব দিয়েছি এবং দেশ ও জাতির জন্য গৌরব অর্জন করতে চেষ্টা করেছি।‘
জাতীয় দলের মতো করে সাকিব ও মিরাজের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলেয়ে ইউনিসেফেও কাজ করতে চান মুশফিক, ‘সাকিব ও মিরাজের সাথে আমি মানুষকে উৎসাহিত করবো বাংলাদেশে শিশু অধিকারে উন্নতি আনতে। ইউনিসেফের সাথে শিশুদের নিরাপদ, সুখী ও সুস্থ শৈশবের জন্য কাজ করতে আমি খুব আগ্রহী। এটি আমার কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এবং আমি শিশু অধিকারের মুখপাত্র হতে পেরে আনন্দিত।’
শিশুদের সুন্দর জীবন গঠনে সবাইকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক বলেছেন, ‘আমি আশা করছি আপনারা যারা এই ভিডিও দেখছেন, আমাদের সাথে যোগ দেবেন সকল শিশুর জন্য একটি সুন্দর জীবন গড়ে তোলার এই যাত্রায়। আসুন সকল শিশুর জন্য উপযুক্ত একটি বাংলাদেশ গড়ি। সকল শিশুর জন্য নিশ্চিত করি একটি সুখী, সুন্দর ও নিরাপদ জীবন।’
মুশফিককে সঙ্গে পেয়ে আনন্দিত ইউনিসেফও। সংস্থাটির বাংলাদেশের উপ-প্রতিনিধি ভিরা মেনডোনকা বলেন, ‘আজ আমরা খুব গর্বিত মুশফিককে ইউনিসেফ পরিবারে আমাদের নতুন জাতীয় শুভেচ্ছাদূত হিসেবে স্বাগত জানাতে পেরে। মুশফিকের যে সম্মান ও প্রতিভা, তা সাহায্য করবে ইউনিসেফকে সারা দেশের মানুষের মাঝে গুরুত্বপূর্ণ বার্তা পৌঁছে দিতে। আপনার শক্তি ও নেতৃত্ব সকল শিশুর জন্য একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *