নিয়ম-কানুনের ব্যাপারে কঠোর হবেন কাজী সালাউদ্দিন

ক্রীড়া প্রতিবেদক
টানা চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। এবারের নির্বাচনে সালাউদ্দিনের প্যানেল নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করেছে।
নতুন করে দায়িত্ব নিয়ে দেশের ফুটবলের উন্নয়নে সবকিছুই ভালোভাবে দেখবেন বলে জানিয়েছেন বাফুফে সভাপতি। নিয়মকানুন মানার ব্যাপারে আগের চেয়ে আরও কঠোর হবেন তিনি।
রোববার (০৪ অক্টোবর) নির্বাচনের পর দিনই বাফুফে ভবনে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন কাজী সালাউদ্দিন। এ সময় ফুটবলের নানা দিক নিয়ে কথা বলেন তিনি। এবার নিয়ম-কানুন কঠোরভাবে নজরদারি করার কথা জানান। জেলা ফুটবল, যুব ফুটবল কোন কিছুই বাদ যাবে না বলে প্রতিশ্রুতি দেন।
প্রথমে কোন কাজটি আগে করতে চান, এমন প্রশ্নের জবাবে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, আমার প্রথম কাজ হবে ডিসিপ্লিনের বিষয়ে কঠোর হওয়া। যে লিগগুলো আছে, সেগুলো অবশ্যই নির্দিষ্ট তারিখে হতে হবে। তারিখ যা দেওয়া হবে তা আর পরিবর্তন হবে না। ১২ বছর হয়ে গেছে, একটা জায়গায় এসেছি। এখন এগিয়ে নিতে হলে ফেডারেশন ও ক্লাবগুলোর এই ডিসিপ্লিনটা থাকতে হবে।
দেশের প্রতিটা জেলায় যেন নিয়মিত লিগ আয়োজন করা হয় এই বিষয়টার ওপর বিশেষ নজর দেওয়া হবে বলে জানান বাফুফে সভাপতি। জেলা ফুটবল আয়োজনের দায়িত্ব জেলা সভাপতির, সেটার দায় তিনি নেবেন না বলে হুঁশিয়ারি দেন।
বাফুফে সভাপতি বলেন, জেলা লিগগুলো ওই জেলার সংগঠকদের করার কথা; কিন্তু সেটা আপনারা আমার ওপর চাপিয়ে দেন। জেলা লিগ করা তো আমার দায়িত্ব নয়। যে জেলায় লিগ হয় না সেই জেলার সভাপতিকে কেন জিজ্ঞেস করেন না। বাংলাদেশে লিগ না হলে তো তার দায় ফিফা সভাপতির হবে না। সেটা আমার দায়িত্ব।
জেলা ফুটবল লিগ আয়োজনের বিষয়ে তিনি বলেন, জেলার ফুটবলের গুরুত্ব তো আছেই। তাদের প্রতি নজরদারি বাড়াতে গেলে দেখতে হবে আমার কতটুকু অধিকার আছে। আমরা এবার একটা ফর্মুলা করব, যা ফিফা এএফসি করেছে। জেলায় পরপর দুই বছর লিগ না হলে কাউন্সিলরশিপ হারাবে। ফিফা এ রকম হলে তো ব্যান করে দেয়। এই নিয়মগুলো যদি আমি প্রথম থেকেই শুরু করতাম, তখন আপনারাই আমাকে মারতেন। এখন তো একটা ফরমেটে এসেছে, এখন আমার কিছু কথা জেলাগুলোকে শুনতেই হবে।
যুব ফটবল প্রসঙ্গে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, সবসময়ই বলছি এটা আমাদের কাজ নয়। তারপরও এ বছর থেকে কাজ করব। জেলায় যে তিনটি টুর্নামেন্টের কথা বলেছি, বঙ্গবন্ধু সিনিয়র জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ, শেখ কামাল অনূর্ধ্ব-১৮ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ ও শেখ রাসেল অনূর্ধ্ব-১২ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ— এগুলো হলে জেলার ফুটবল চাঙ্গা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *