জাতীয় পার্টি ত্যাগ করলেন চিত্রতারকা সোহেল রানা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

জাতীয় পার্টি থেকে পদত্যাগ করেছেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য চিত্রতারকা মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা)। একইসঙ্গে জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতির পদও ছেড়েছেন তিনি। গত ১০ অক্টোবর পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের বরাবর রেজিস্টার্ড ডাকযোগে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন তিনি।

মাসুদ পারভেজ ছাত্রজীবন থেকে রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। ছাত্রলীগের তুখোড় নেতা ছিলেন। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের নেতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ইকবাল হলের ভিপি ছিলেন সোহেল রানা।

তিনি ২০০৯ সালে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্যপদ গ্রহণ করে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। সে সময় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের নির্বাচনবিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পান তিনি।

পদত্যাগের কারণ জানাতে গিয়ে সোহেল রানা গণমাধ্যমকে বলেন, তৃণমূলের কর্মীদের যথাযথ মূল্যায়ন না করা এবং দেশজুড়ে নিবেদিতপ্রাণ নেতাদের অবমূল্যায়ন করাকে আমার পদত্যাগের কারণ বলব।

জাতীয় পার্টি ছাড়লেও রাজনীতির ময়দান থেকে এখনই সরে যাচ্ছেন না বলে জানান এই চলচ্চিত্র তারকা। তিনি বলেন, কখন কী হবে, এটা তো বলা মুশকিল। আমি রাজনীতি সচেতন, রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ততা থাকবে।

মাসুদ পারভেজের জন্ম ১৯৪৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় ঝাপিয়ে পড়েছেন মুক্তিযুদ্ধে। তার জন্ম ঢাকায় হলেও পৈতৃক বাসস্থান বরিশাল জেলায়।

মাসুদ পারভেজ স্বাধীনতাযুদ্ধের পরপরই বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন। প্রযোজক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন পারভেজ ফিল্মস এবং এই প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে চাষী নজরুল ইসলামের পরিচালনায় নির্মাণ করেন বাংলাদেশের প্রথম মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’।

অভিনেতা ও পরিচালক হিসেবে যাত্রা শুরু ১৯৭৩ সালে। কাজী আনোয়ার হোসেনের বিখ্যাত কাল্পনিক চরিত্র মাসুদ রানা সিরিজের একটি গল্প অবলম্বনে মাসুদ রানা চলচ্চিত্রে নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন সোহেল রানা নাম ধারণ করে এবং একই ছবির মাধ্যমে তিনি পরিচালক হিসেবে মাসুদ পারভেজ নামে।

চিত্রনায়ক পরিচয়ের বাইরে তিনি প্রযোজক ও পরিচালকও। ২০১১ সালে প্রযোজক-পরিবেশক সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন মাসুদ পারভেজ। তিনি তার দীর্ঘ অভিনয় জীবনে অভিনেতা হিসেবে তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছেন। এছাড়াও পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *