মুক্তি পেয়ে মেহবুবা মুফতির ঘোষণা, ‘লড়াই চলবেই’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

দীর্ঘ ১৪ মাস গৃহবন্দি থাকার পর মঙ্গলবার মুক্তি পেয়েছেন ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি’র (পিডিপি) প্রেসিডেন্ট মেহবুবা মুফতি। রাত পৌনে ১০টা নাগাদ তাকে মুক্তি দেয়া হয়। জম্মু-কাশ্মীর সরকারের মুখপাত্র রোহিত কানসাল মেহবুবার মুক্তির বিষয়টি টুইট করে জানিয়েছেন।

মুক্তি পাওয়ার পর নিজের জীবনের কঠিন সময়ের কথা টুইটারে ভিডিও করে শেয়ার করেন মেহবুবা মুফতি। সেখানে তিনি বললেন, জম্মু-কাশ্মীরের লড়াই চলবেই। এবং যাদের আটকে রাখা হয়েছে তাদেরকেও ছাড়তে হবে।

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের পর ২০১৯-এর ৫ আগস্টে জম্মু-কাশ্মীরের তিন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ, ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতি-সহ কাশ্মীরের বহু রাজনীতিককে আটক করে ভারত সরকার।

এ বছরের গোড়াতে ওমর, ফারুকসহ কয়েকজনকে মুক্তি দেয়া হলেও মেহবুবাকে গৃহবন্দি করেই রাখা হয়। বারবার নানা অছিলায় তার গৃহবন্দির সময়কাল বাড়ানো হয় বলে অভিযোগ। গত জুলাইয়ে তিন মাসের জন্য মেহবুবার গৃহবন্দির সময়কাল বাড়িয়েছিল প্রশাসন। ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের পর মেহবুবাকে প্রথমে দু’টি সরকারি বাসস্থানে আট মাস গৃহবন্দি করে রাখা হয়।

তার পর এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে তাকে ফের আটক করা হয় জন নিরাপত্তা আইনে। পর তার বাসভবন ‘ফেয়ার ভিউ’য়ে স্থানান্তরিত করা হয় মেহবুবাকে। সেই বাসভবনকে অস্থায়ী জেলে পরিণত করা হয় এবং সেখানেই গৃহবন্দি করে রাখা হয় পিডিপি নেত্রীকে। ২০১৯-এর ওই দিনটিকে ‘কালো দিন’ বললেন মুফতি।

তার মুক্তির আবেদন করে সুপ্রিম কোর্টে যান তার কন্যা। সেই মামলা চলছিল, তার মধ্যেই মেহবুবাকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিলো কেন্দ্রীয় সরকার। জুলাই মাসে পাবলিক সেফটি অ্যাক্ট অনুযায়ী তিন মাসের জন্য মেহবুবা মুফতির আটকের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়। সেই আদেশ নতুন করে ফের দিলো না কেন্দ্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *