র‍্যাম্প মডেলিং থেকে বলিউড মাতানো নায়িকারা

বিনোদন ডেস্ক :

বলিউড নায়িকাদের নিয়ে সিনেমাপ্রেমীদের কৌতুহল কোনো সময় কমে না। ইন্ডাস্ট্রিতে কোনো সিনেমা মুক্তি পাওয়ার খবর এলেই ‘নায়িকা কে’- এই নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে যায়। কোন নায়িকা কী করল, কী পরল- কোন সিনেমায় কাকে কেমন দেখা গেল তা নিয়ে পত্রিকার পাতা ভরে খবর আসে। আর এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলে হইচই। কে সেরা সুন্দরী, কার ব্যক্তিত্ব সুন্দর, কে অভিনয়ে দক্ষ কিংবা কে সেরা আবেদনময়ী – তা নিয়েও কতশত জরিপ চলে তারও কোনো হিসাব নেই। চলুন প্রিয় পাঠক, দেখে আসি কয়েকজন বলিউড নায়িকাকে, যারা র‍্যাম্প থেকে এসে সিনেমা মাতিয়েছেন।

জিনাত আমান

মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় হয়েছিলেন দ্বিতীয় রানার আপ। এরপর ১৯৭০ সালে প্রথম কোনো ভারতীয় হয়ে জেতেন মিস এশিয়া প্যাসিফিকের খেতাব। তিনি জিনাত আমান। এই জয়ের পর তিনি বলিউডে পা রাখেন; কাজ করেন ‘সত্যম শিভম সুন্দরম’, ‘ধরম বীর’ এবং ‘কুরবানি’ সিনেমায়। তাকে বলা হয় বলিউডের ‘কিন্নরকণ্ঠী’।

জুহি চাওলা

বলিউড তারকা জুহি চাওলা ১৯৮৪ সালে মিস ইন্ডিয়া ইউনিভার্স জেতেন। পরে তিনি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা- বেস্ট ন্যাশনাল কস্টিউম অ্যাওয়ার্ডও পান। মাত্র ১৭ বছর বয়সে পথচলা শুরু হয় তার। শুরুর দিকে তিনি বিভিন্ন বলিউড প্রজেক্টে কাজ করেন। এছাড়াও বাংলা, পাঞ্জাবি, মালায়ালাম, তামিল এবং তেলেগু সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি। তার ঝুলিতে রয়েছে দুটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার। পর্দায় সদা সরব থাকার কারণে কুড়িয়েছেন প্রশংসাও।

ঐশ্বরিয়া রায়

তার কোনো ভূমিকার প্রয়োজন নেই। তিনি ঐশ্বরিয়া রায়। ১৯৯৪ সালে তিনি জেতেন মিস ওয়ার্ল্ড। এরপর বলিউডে তার পথচলা শুরু। এখানে এসে পরিচয় হয় অভিষেক বচ্চনের সাথে, তারপর বিয়ে। বিয়ের পর এই অভিনেত্রীকে আর স্বরূপে খুব বেশি দেখা যায়নি। তবে এখনো তিনি ভক্তদের বেঁধে রেখেছেন নীল চোখের মায়ায়।

সুষ্মিতা সেন

যে বছর ঐশ্বরিয়া মিস ওয়ার্ল্ড জেতেন, সে বছর মিস ইউনিভার্সের মুকুট আসে সুষ্মিতা সেনের মাথায়। শুরুর দিকে সেন বলিউড সিনেমায় অভিনয় করেন। পাশাপাশি তিনি কাজ করেছেন বাংলা ও তামিল ছবিতে। ‘সময়- হোয়েন টাইমস স্ট্রাইকস’ (২০০৩) এবং ‘মে হো না’ (২০০৪) -বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে।

লারা দত্ত

বলিউড বিউটি কুইন লারা দত্ত। ১৯৯৭ সালে মিস ইন্টারকন্টিনেন্টাল এবং ২০০০ সালে মিস ইউনিভার্স জেতেন তিনি। ‘আন্দাজ’ (২০০৩) এবং ‘হাউসফুল’ (২০১০) তার উল্লেখযোগ্য সিনেমা। অভিনয়ের জন্য তিনি প্রশংসার পাশাপাশি পেয়েছেন ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে কে না চেনে? একাধারে তিনি অভিনেত্রী, গায়িকা, প্রযোজক। ২০০০ সালে তিনি মিস ওয়ার্ল্ডের পুরষ্কার আসে তার ঘরে। তিনি ভারতের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকের নায়িকা এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় সেলিব্রিটি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের পাশাপাশি তিনি পাঁচটি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন।

নেহা ধুপিয়া

বলিউডে খ্যাতির পূর্বে ২০০২ সালে ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া জেতেন নেহা ধুপিয়া। ‘কিয়ামত: সিটি আন্ডার থ্রেট’ সিনেমা দিয়ে শুরু হয় তার যাত্রা। হিন্দি সিনেমার পাশাপাশি তিনি পাঞ্জাবি, তেলেগু ও মালায়ালাম সিনেমায় কাজ করেছেন।

দিয়া মির্জা

‘লাগে রাহো মুন্নাভাই’ ও ‘সানজু’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য দিয়া মির্জা বেশ খ্যাতি কুড়িয়েছেন। সিনেমায় আসার আগে ২০০০ সালে তিনি মিস এশিয়া প্যাসিফিক জেতেন। তার প্রথম ছবি ‘রেহেনা হে তেরে দিল মে’।

জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ

শ্রীলঙ্কান অভিনেত্রী ও সাবেক মডেল জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ। ২০০৬ সালে মিস ইউনিভার্স শ্রীলঙ্কা’র মুকুট তার মাথায় উঠে। ২০০৯ সালে ‘আলাদিন’ সিনেমা দিয়ে তার বলিউডে পথচলা শুরু হয়।

মীনাক্ষী শেষাদ্রি

সাবেক ভারতীয় তারকা অভিনেত্রী, মডেল ও নৃত্যশিল্পী মীনাক্ষী শেষাদ্রি। হিন্দি, তামিল ও তেলেগু সিনেমায় কাজ করেছেন তিনি। মাত্র ১৭ বছর বয়সে ১৯৮১ সালে ইভ’স উইকলি মিস ইন্ডিয়া জয়ের পুরস্কার তার ঝুলিতে আসে। তার পুরো ক্যারিয়ার জুড়ে পুরস্কারের ছড়াছড়ি।

নম্রতা শিরোদকর

মডেল, অভিনেত্রী ও প্রযোজক নম্রতা শিরোদকর তার কাজের জন্য বলিউডে পরিচিতি পেয়েছিলেন। ১৯৯৩ সালে তিনি ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া জেতেন।

পূজা বাত্রা

১৯৯৩ সালে ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল জিতে অভিনয়ে নাম লেখান পূজা বাত্রা। ‘কহি পেয়ার হো না যায়ে’ (২০০০) সিনেমায় অভিনয়ের জন্য তিনি বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

তনুশ্রী দত্ত

২০ বছর বয়সে ২০০৪ সালে মিস ইন্ডিয়া ইউনিভার্সের মুকুট উঠে তার মাথায়। একই বছর মিস ইউনিভার্সের চূড়ান্ত দশজনের মধ্যেও ছিলেন। তিনি তনুশ্রী দত্ত। শুরুর দিকে তিনি বলিউড সিনেমায় অভিনয় করেন। ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ (২০০৯) এবং আশিক বানায়া আপনে (২০০৫) এর জন্য তিনি বেশ আলোচিত। ২০০৯ সালের এক সিনেমায় নানা পাটেগার তাকে যৌন হয়রানি করেন বলে অভিযোগ তোলেন।

মানুষী চিল্লার

২০১৭ সালে মিস ওয়ার্ল্ড জেতেন মানুষী চিল্লার। পৃথ্বীরাজ চৌহানের জীবন আলোকে নির্মিত সিনেমা ‘পৃথ্বীরাজ’ এ তিনি অক্ষয় কুমারের বিপরীতে অভিনয় করেছেন। কোভিড ১৯ এর জন্য সিনেমাটি মুক্তি পেতে দেরি হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *