সচেতনতা রুখবে জীবনের অপচয়

মহাকাল ডেস্ক :

বিশ্বজুড়ে নারীদের হাতে মৃত্যু পরোয়ানা তুলে দিচ্ছে যে রোগগুলো তার মধ্যে অন্যতম প্রধান হয়ে দাঁড়িয়েছে স্তন ক্যান্সার। বাংলাদেশের ক্যান্সার রোগীদের মধ্যে ১৭ শতাংশই স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত। বিশ্বজুড়ে অক্টোবর মাসকে “স্তন ক্যান্সার সচেতনতা মাস” হিসেবে পালন করা হয়, এ মাসে আমেরিকায় সর্বত্র চোখে পড়ে ‘গোলাপি ফিতা’ যা স্তন ক্যান্সার সচেতনতার প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়, অথচ বাংলাদেশে বিপুলসংখ্যক নারী প্রতি বছর স্তন ক্যান্সারের কারণে মৃত্যুবরণ করার পরও আমাদের দেশে স্তন ক্যান্সার নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যাপকতায় সচেতনতা কর্মসূচি দেখা যায় না। স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত সকল নারীরাই স্তন ক্যান্সারের উপসর্গ সম্পর্কে সঠিকভাবে অবগত না হবার কারণে, স্তন সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে ডাক্তারের কাছে যেতে অনীহার কারণে এবং নিজেদের ও পরিবারের মানুষের অবহেলার কারণে তাদের রোগকে প্রতিরোধযোগ্য পর্যায় থেকে মরণঘাতী পর্যায়ে নিয়ে যান। অনেক সময়েই সময়মতো চিকিৎসা না নেয়ার কারণে ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ে শরীরের অন্যান্য অংশে এবং রোগীকে অপেক্ষা করতে হয় তিলে তিলে মৃত্যুবরণ করার জন্য। বিশ্বে প্রতি বছর ৫ লাখ নারী স্তন ক্যান্সারে মারা যায়। আর বাংলাদেশে প্রতি বছর এ রোগে আক্রান্ত হয় ২২ হাজার নারী এবং মারা যাচ্ছে ১৭ হাজার নারী। অথচ বিশেষজ্ঞরা বলেছেন ৯০ শতাংশের ক্ষেত্রেই সচেতনতা ও সময়মতো চিকিৎসা বাঁচিয়ে তুলতে পারে রোগীকে এবং দিতে পারে সুস্থ স্বাভাবিক জীবন।
সাধারণত ৫০ বছরের বেশি বয়সীদের মধ্যে এই ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। ২৫ বছর বয়সের আগে সাধারণত স্তন ক্যান্সার হয় না? ৪০ ভাগ স্তন ক্যান্সার সাধারণত ৫০ বছর বা এর পরে হয়ে থাকে? পরিবারের নারী সদস্যদের মধ্যে (বিশেষত যেমন মা, বোন) স্তন ক্যান্সার বা অন্যান্য ক্যান্সারের ইতিহাস থাকলে, ইস্ট্রোজেন হরমোন (স্ত্রী হরমোন) বৃদ্ধি পেলে, ১২ বছরের আগে মাসিক শুরু হলে, মাসিক দেরিতে অর্থাৎ ৫০ বছর বয়সের পর বন্ধ হলে, ২০ বছরের আগে বিয়ে হলে, ৩০ বছরের পর প্রথম সন্তান জন্ম হলে, সন্তানকে বুকের দুধ না খাওয়ালে, নিঃসন্তান থাকলে, বিড়ি-সিগারেট, তামাক সেবন, কম শারীরিক পরিশ্রম, দীর্ঘদিন উচ্চরক্তচাপ ও বহুমূত্র রোগ থাকলে, বেশি মোটা হলে স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
স্তন ক্যান্সারের লক্ষণগুলো হলো:
স্তনের কোনো অংশ চাকা চাকা হয়ে যাওয়া অথবা কোনো লাম্প দেখা যাওয়া
স্তনের আকার বা আকৃতির পরিবর্তন- যেমন বড় হয়ে যাওয়া বা ঝুলে যাওয়া
স্তনবৃন্তের আকারে পরিবর্তন, স্তনবৃন্ত থেকে রক্ত বা তরল পদার্থ বের হওয়া
স্তনবৃন্তের আশপাশে রাশ বা ফুসকুড়ি দেখা যাওয়া
স্তন ফুলে যাওয়া বা চাকা দেখা দেয়া
স্তনের ভেতরে গোটা ওঠা বা শক্ত হয়ে যাওয়া ইত্যাদি।
এ ধরনের যে কোনো লক্ষণ দেখা দেয়ার সাথে সাথে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে। সাধারণত নারী মেনোপজের আগে স্তনের দুধ দানকারী টিস্যুসমূহ ঋতু শুরুর আগে আগে কার্যক্ষম হয়ে ওঠে। কোনো কোনো মহিলার ক্ষেত্রে স্তন হয় নরম অথবা বগলের কাছাকাছি জায়গায় স্তনে গোটার মতো হতে পারে। সাধারণত মহিলাদের ঋতু বন্ধের বছরখানেক আগে স্তনের এ ধরনের পরির্তন স্বাভাবিক। আবার মৃগীরোগ বা হিস্টিরিয়ায় আক্রান্ত মহিলাদের স্তনে এ সকল পরিবর্তন মাসে মাসে দেখা দিতে পারে এবং ঋতুচক্র শেষ হলেই স্তন আবার স্বাভাবিক হয়ে ওঠে। কাজেই স্তন পর্যবেক্ষণের সবচেয়ে ভালো এবং উপযুক্ত সময় হচ্ছে প্রতি মাসে ঋতুচক্র শেষ হওয়ার ঠিক পরপর। এমনকি মহিলাদের মেনোপজের পরও প্রতি মাসের ওই একই তারিখে স্তন পর্যবেক্ষণ করা উচিত। তবে মনে রাখা জরুরি এ পর্যবেক্ষণ মাসে একবারের বেশি করা ঠিক নয়। এতে করে স্তনের ছোটখাটো পরিবর্তন পরিষ্কার ও সঠিকভাবে লক্ষ্য করা যায় না।

নিজেদের স্তনের স্বাভাবিক পরিবর্তনগুলো মহিলাদের সবারই জানা প্রয়োজন। তাহলে অস্বাভাবিক কিছু হলে সহজে বোঝা যাবে। মাসিকের পূর্বে সাধারণত স্তনে ব্যথা এবং গুটি মনে হতে পারে। এ রকম অবস্থায় দুশ্চিন্তা না করে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়াই শ্রেয়। ডাক্তার আপনাকে পরীক্ষা করে দেখে প্রয়োজন হলে আরও কিছু টেস্টের ব্যবস্থা করতে পারেন। সাধারণত যেসব টেস্ট করা হয় সেগুলো হলো- মেমোগ্রাম, ফাইন নিডেল অ্যাসপিরেশন সাইটোলজি, আলট্রাসাউন্ড ইত্যাদি।
নারীদের নিজেদের স্তন সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। আমাদের দেশের নারীরা নানা কারণে নিজেদের এ ধরনের রোগ সম্পর্কে এমনকি স্বামীকেও বলতে চান না, অন্য কাউকে তো নয়ই। যেহেতু মেয়ে ও মায়ের মাঝে এ ধরনের ব্যাপারে খোলাখুলি আলোচনা বেশি হয়ে থাকে তাই তাদেরকেই পরস্পরের খেয়াল রাখতে হবে, পরিবারের সদস্যদের বিশেষ করে স্বামীদের স্ত্রীদের প্রতি যত্নশীল হতে হবে এবং সহজ সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে দু’জনার মাঝে যাতে জীবন সঙ্গিনীর কষ্টগুলো সহজে ও দ্রুত জানা, বোঝা ও সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া যায়। ক্যান্সার ধরা পড়লে ঘাবড়ে না গিয়ে সুচিকিৎসা নিতে হবে। চিকিৎসককে সবকিছু খুলে বলা উচিত। কারণ তিনিই স্তনের পর্যবেক্ষণ সর্বোৎকৃষ্ট উপায়ে করতে সক্ষম। মনে রাখতে হবে চিকিৎসকের কাছে সময় নিয়ে সবকিছু খুলে বলার মানে কারো সময় নষ্ট করা নয়। সতর্ক ও আন্তরিক হলে এ রোগের প্রতিরোধ ও আরোগ্য সম্ভব। পরিবারের সবাইকে রোগীর পাশে থাকতে হবে, তাকে বোঝাতে হবে এ রোগ আরোগ্য হওয়া সম্ভব, তাই মৃত্যুর আগেই শতবার মৃত্যুবরণ করা কোনো কাজের কথা নয়। অদম্য জীবনস্পৃহার কাছে যমদূতও হেরে যেতে পারে যদি মনে থাকে আশা, থাকে আপন মানুষের সাহচর্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *