প্রয়োজনে আলেমরা হয় সঙ্গী না হলে জঙ্গি: আলাল

মহাকাল প্রতিবেদক :

সাম্প্রতিক সময়ে আলেম সমাজকে হেয় করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও যুবদলের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। তিনি বলেন, ‘আবার যখন প্রয়োজন তাদের কাঁধের ওপর হাত দেয়া হচ্ছে। যখন প্রয়োজন তারা আলেমদের ব্যবহার করে, যখন প্রয়োজন শেষ হয়ে যায় তখন তাদের আর মূল্য থাকে না। যখন প্রয়োজন তখন তারা হয় সঙ্গী আর যখন প্রয়োজন শেষ হয়ে যায় তখন তারা হয় জঙ্গি।’

শনিবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে কল্যাণ পার্টির আয়োজনে ‘বিজয়-কে সুসংহত করার জন্য ভাবনা-বিনিময়’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

কিছুদিন আগে একজন সিকি মন্ত্রী বলেছেন আওয়ামী লীগ ইচ্ছা করলে ঘাড়ে হাত দিয়ে বন্ধুত্ব রাখতে পারে আবার ইচ্ছা করলে ঘাড় মটকে দিতে পারে উল্লেখ করে আলাল বলেন, ‘ক্ষমতাসীনরা ঘরের মধ্যে বিয়ে দিয়ে রাজাকারদের স্বীকৃতি দিতে পারবে কিন্তু প্রকৃত রাজাকারের বিচার করতে পারবে না। এইযে দ্বিমুখী নীতি কারণ আমরা সরে এসেছি গণতন্ত্র থেকে সাম্য মানবিক মর্যাদা থেকে।’

আলাল বলেন, ‘আমি আপনাদের একটি তথ্য দেই। প্রত্যেকটি কথা আপনাদের মনে রাখতে হবে আমি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল অনেক মামলার আসামি, বহুবার এই সরকারের আমলে জেল খেটেছি সাড়ে চার বছরে সরকারের আমলে কারাগারে ছিলাম। ৩১ বার আমাকে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে আমাকে এইরকম ফাঁসির আসামির সেলে রাখা হয়েছে রাখার পর বলা হয়েছে আপনি যেখানে আছেন সেখানে আমরা অনুপ চেটিয়াকে সাত বছর রেখেছিলাম। সুতরাং আমি বুঝি সাইবার অ্যাক্টের মামলা আমার নামেও হতে পারে।’

আলাল আরও বলেন, এই সরকারের আমলে গত ১২ বছরে নিগৃহীত হতে গুম হতে, খুন হতে, নির্যাতিত হতে ধর্ষিতা হতে বিএনপির করা লাগে না। ভিন্নমত হলেই যথেষ্ট। ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বিএনপি করেন না, বিচারপতি এসকে সিনহা বিএনপি করেন নাই। সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান ও বিএনপি করেন না সাংবাদিক কনক সরওয়ার বিএনপি করেন না অথচ কেন তারা আজকে দেশের বাহিরে। তুহিন মালিক বিএনপি করেন না কেন তিনি দেশে থাকতে পারেন না?

সেমিনারে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল অব. সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *