সাংবা‌দি‌কের মাথা ফাটা‌লেন ইউপি চেয়ারম্যান

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি :

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক মন্টুর মাথা ফাটিয়ে দিয়েছেন ভূরুঙ্গামারী সদর ইউনিয়‌নের চেয়ারম্যান একেএম মাহমুদুর রহমান রোজেন। শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) বিকেলে ভূরুঙ্গামারী বাজারে এই ঘটনা ঘটে।

প‌রিবা‌রের দা‌বি, ক্যান্সারে আক্রান্ত এই চেয়ারম্যান মানসিক অবসাদ থেকে এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন। ত‌বে তার কর্মকা‌ণ্ডে ক্ষিপ্ত হ‌য়ে উ‌ঠে‌ছে এলাকাবাসী। গত ৫ব ছরে প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে অপদস্ত করে‌ছেন ব‌লে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।

আহত সাংবা‌দি‌কের নাম এমদাদুল হক মন্টু। তি‌নি ভূরুঙ্গামারী প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক।

তি‌নি ব‌লেন, বাজারে ডিস সংযোগের ক্যাবল পরিবর্তনকালে এসএম ডিজিটাল ক্যাবল নেটওয়ার্কের ফিডার মালিক মজনু ও আব্দুল কাদেরকে মারধর করেন ইউপি চেয়ারম্যান একেএম মাহমুদুর রহমান রোজেন। এ খবর শুনে এসএম ডিজিটাল ক্যাবল নেটওয়ার্কের স্বত্বাধীকারী সাংবাদিক এমদাদুল হক মন্টু ঘটনাস্থলে পৌঁছ‌ালে ওই চেয়ারম্যান অতর্কিতভাবে ইট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করেন। এতে তার মাথার মধ্যভাগ ফেটে ও থেতলে যায়।

মারাত্মক আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, এর আগে ওই চেয়ারম্যান পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কর্মচারী, হাসপাতালের স্টাফ, বাজার মসজিদের সম্পাদক ও মুয়াজ্জিনসহ হাট-বাজারের প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ঘটিয়েছেন। স্থানীয় প্রভাবশালী এই চেয়ারম্যান ঠিকমতো অফিসেও বসেন না। সামান্য কিছু হলেই ক্ষিপ্ত হয়ে গায়ে হাত তোলার ঘটনা একাধিকবার ঘটালেও কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় তার অন্যায় ও বেপরোয়া আচরণের ঘটনা বেড়েই চলেছে।

বৃহস্পতিবারের মাসিক সমন্বয় সভায় বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাগণ ইউপি চেয়ারম্যানের নিস্ক্রিয়তার কারণে সরকারি কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হচ্ছে মর্মে অভিযোগ করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার দেব শর্মা সদর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় কর্মকর্তাগণের অভিযোগের কথা স্বীকার করেছেন।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুন্নবী চৌধুরী জানান, ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম সভায় নির্বাচিত ১নং প্যানেল চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান উক্ত ইউনিয়নের অসমাপ্ত কার্যক্রম পরিচালনা করবেন মর্মে মাসিক সমন্বয় সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জানা গেছে, চেয়ারম্যান রোজেন ক্যান্সার আক্রান্ত। প্রায় দুই মাস থেকে তিনি মানসিক রোগীর মতো আচরণ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *